প্রধান পাতা  |  ভাষা বিকল্প  |  ডাউনলোড  |  FAQ  |  যোগাযোগ করুন (নতুন টোল ফ্রি নম্বর)  |  Site Map  
 
 
Bengali CD Cover
 
ভারতীয় ভাষার জন্য ভাষা প্রযুক্তি
 
মানুষের পারস্পরিক যোগাযোগ ব্যবস্থা সহজাতভাবেই বহু-মাধ্যমকেন্দ্রিক, যার মধ্যে দর্শন ও শ্রুতি মাধ্যম হল প্রাথমিক মাধ্যম। মানুষের পরিবর্তে মেশিনের মাধ্যমে যোগাযোগ রক্ষা অধিকতর সুবিধাজনক হওয়ার কারণে বর্তমানে ব্যক্তি-মেশিন যোগাযোগ ব্যবস্থাটি বহুলভাবে প্রচলিত হচ্ছে। এই ব্যবস্থায় মাউস এবং কী-বোর্ড হল প্রাথমিক ইনপুট ডিভাইস এবং ভিজুয়াল ডিসপ্লে ইউনিটটি হল প্রাথমিক আউটপুট ডিভাইস। তবে এই ধরনের ইন্টারফেস ব্যবহারের জন্য প্রয়োজন বিশেষ ধরনের দক্ষতা এবং মানসিক প্রবণতা যা সকলের মধ্যে থাকে না। মেশিন-ভিত্তিক এই যোগাযোগ ব্যবস্থাকে আরো বেশি ব্যক্তিকেন্দ্রিক করে তুলতে হবে যাতে সকলেই কম্পিউটারের শক্তি দ্বারা উপকৃত হতে পারে। তথ্যগ্রহণের সময় দৃষ্টি এবং তথ্য পাঠানোর সময় বাঞ্ছিত এবং সবচেয়ে সুবিধাজনক মাধ্যম হল কথা। কম্পিউটার এবং টেলিযোগাযোগ ব্যবস্থার সমন্বয়ে বর্তমানে কথোপকথনের দ্বারা যোগাযোগ রক্ষা অনেক বেশি সুবিধাজনক হয়ে উঠেছে। যে কোনো ব্যক্তিই এখন দূরবর্তী কম্পিউটারে থাকা তথ্যে প্রবেশ ও সেই তথ্য ব্যবহার করতে পারেন। মৌখিক যোগাযোগের ভিত্তি হল ভাষা, তাই তথ্যপ্রযুক্তি ক্ষেত্রে ভাষাবিজ্ঞানের ভূমিকাটি বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ। কম্পিউটারে ব্যক্তিকেন্দ্রিক ইন্টারফেস গড়ে তোলা তাই বিশেষ প্রয়োজন। ভাষা হল মানুষের এমন এক বিশেষ দক্ষতা যার সাহায্যে নিজেদের মধ্যে বিভিন্ন তথ্য, চিন্তা বা ভাবধারার আদান-প্রদান ঘটানো যায় খুব সহজে। স্বাভাবিক ভাষার দ্বারা ব্যক্তি ও মেশিনের পারস্পরিক যোগাযোগকে সহজতর করতে ভাষাপ্রযুক্তির কয়েকটি বিষয় উল্লেখযোগ্য: কথা-সংকোচন (Speech Compression), কথা ও লিপি চিহ্নিতকরণ এবং বোধ (Recognition and Understanding of Speech and Script), যন্ত্র অনুবাদ (Machine Translation), পাঠ উৎপাদন (Text Generation), কথা ও টানা হাতের লিপি সংশ্লেষ (Synthesis of Speech and Cursive Script)। মেশিনের সঙ্গে যোগাযোগের সময় কথ্য বা লেখ্য উভয় ভাষাই গুরুত্বপূর্ণ।
 
বিগত দুই দশক ধরে কম্পিউটারের বিভিন্ন প্ল্যাটফর্মে এবং বিভিন্ন অপারেটিং সিস্টেমে ভারতীয় ভাষার ওপর কাজ চলছে। উল্লেখযোগ্য কাজ হয়েছে তথ্য প্রক্রিয়ণ (Data Processing), শব্দ প্রক্রিয়ণ (Word Processing), ডেস্কটপ প্রকাশনা (Desktop Publishing) ইত্যাদি ক্ষেত্রে।

ব্যক্তি-মেশিন পারস্পরিক ক্রিয়ায় ভাষাগত ব্যবধান দূর করার জন্য তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগ নানা ধরনের তথ্য প্রক্রিয়ণ উপায় ও কৌশল উন্নয়নের উদ্দেশ্যে TDIL (ভারতীয় ভাষার জন্য প্রযুক্তিগত উন্নয়ন) প্রোগ্রামটি শুরু করেছে; বিভিন্ন ভাষাসংক্রান্ত জ্ঞানের ভান্ডার তৈরি করা হয়েছে এবং ব্যবহর্তাদের জন্য নানা অভিনব পণ্য ও পরিসেবা উৎপাদনের জন্য সেগুলিকে একত্রিত করা হয়েছে। করপোরা এবং অভিধানের মত ভাষাভিত্তিক সম্পদ তৈরি করা এবং তা ব্যবহারের জন্য, এছাড়া তথ্য প্রক্রিয়ণের প্রাথমিক নানা উপায়, যেমন ফন্ট, পাঠ-সম্পাদক (Text Editor), বানান-সহায় (Spell-checker), OCR এবং পাঠ-থেকে-কথা (Text-to-Speech) ইত্যাদি তৈরির জন্য বিভিন্ন প্রকল্পে অর্থ বিনিয়োগ করা হচ্ছে। এ সমস্ত ক্ষেত্রে মান (standard) নির্ধারণের কাজও হয়েছে।

দেশের বিভিন্ন স্থানে বেসরকারিভাবে, জনসাধারণের প্রচেষ্টায় অথবা সরকারি স্তরে ভারতীয় ভাষা প্রযুক্তিগত দ্রব্য বা পরিসেবা উন্নয়নের উদ্দ্যেশ্যে বিভিন্ন প্রচেষ্টা নেওয়া হয়েছে। বিভিন্ন সম্পদ কেন্দ্র (Resource Centre) এবং কয়েলনেট কেন্দ্রের তৈরি ভাষাভিত্তিক প্রযুক্তি এবং উপায়গুলিকে দ্রুত ব্যবহারে আনা উচিত যাতে সেগুলি সম্পর্কে জনসাধারণের প্রতিক্রিয়া জানা যায় এবং সেগুলিকে উৎপাদনের কাজে ব্যবহার করা যায়। গবেষণা এবং উন্নয়নের প্রভাব সমাজের সামগ্রিক স্তরে প্রতিফলিত হওয়া দরকার। অর্থাৎ, উন্নয়নমূলক প্রচেষ্টা শুধুমাত্র গবেষণাগারেই সীমাবদ্ধ না রেখে বিভিন্ন ক্ষেত্রে প্রয়োগ করে দেখতে হবে, এর ফলে ব্যবহর্তার কাছ থেকে পাওয়া ফিডব্যাক এবং অভিজ্ঞতা দ্বারা উন্নয়নমূলক কার্যটিকে সংশোধন করা যাবে।

আগামী এক বছরের মধ্যে সরকার জনসাধারণের কাছে নীচের উৎপাদন এবং সমাধানগুলি প্রদান করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন:
 
  সমস্ত ভারতীয় ভাষায় বিনামূল্যে (TTF এবং OTF) ফন্ট এবং শব্দ প্রক্রিয়ক (Word Processor)। এর প্রথম ধাপ হিসেবে প্রকাশনা সংস্থার/শিল্পের সঙ্গে আলোচনার ভিত্তিতে সনাতন ভাষা তামিলের জন্য জনপ্রিয় ট্রু টাইপ ফন্টগুলি (TTF) বেছে নেওয়া হয়েছে এবং জনসাধারণের মধ্যে তা বিনামূল্যে বিতরণের ব্যবস্থা করা হয়েছে। যে সমস্ত সিস্টেমে উইন্ডোজ 95/ উইন্ডোজ 98/ উইন্ডোজ NT প্ল্যাটফর্ম রয়েছে তাতে TTF ফন্টগুলি বহুল ব্যবহৃত। উইন্ডোজ 2000/XP/2003 এবং লাইন্যাক্স প্ল্যাটফর্মের জন্য OTF (ওপেন টাইপ ফন্টস) প্রকাশ করা হয়েছে। এই ধরনের প্রচেষ্টা ভারতবর্ষে প্রথম এবং বেশিরভাগ শব্দ প্রক্রিয়কই (উপস্থিত এবং নতুন) এই ফন্টগুলি ব্যবহার করতে পারবে। এর ফলে তামিল নেট/তামিল 99 এবং টাইপরাইটার কী-বোর্ড ব্যবহর্তারা তথ্যভুক্তির জন্য আরও বেশি ফন্ট ব্যবহারের সুবিধা পাবেন।
   
  তথ্য নিষ্কাশন (Information Extraction), পুনরুদ্ধার (Retrieve) এবং সংখ্যায়নের (Digitization) জন্য সব ভারতীয় ভাষায় অপটিক্যাল ক্যারেকটার রেকগনিশন (OCR)। OCR-এর সাহায্যে স্ক্যান করা ছবিগুলিকে (স্ক্যানার দিয়ে ছাপা পাতা স্ক্যান করা) সম্পাদনযোগ্য পাঠে বদলানো সম্ভব। এর ফলে সেগুলিকে অন্যান্য প্রয়োগব্যবস্থাতেও (Application) ব্যবহার করা যাবে এবং প্রয়োজনমত পরিবর্তন করা যাবে। প্রকাশনা শিল্প হল এর অন্যতম প্রধান সুবিধাভোগী কারণ পুনরুৎপাদন বা নতুন সংস্করণ প্রকাশের কাজে এই সফ্‌টওয়্যার ব্যবহার করা যাবে।
   
  রেলওয়ে সংক্রান্ত তথ্যাবলি, স্বাস্থ্যসচেতনতা, কৃষি, বিপর্যয় মোকাবিলা এবং অন্যান্য গণ-উপযোগিতামূলক পরিসেবার ক্ষেত্রে কথার ইন্টারফেস তৈরি। ভারতীয় ভাষায় এই উন্নতমানের প্রযুক্তির সাহায্যে জনসাধারণ বিশেষভাবে সুবিধা লাভ করবে। ইন্টারফেসটি কণ্ঠস্বর চিহ্নিতকরণ ইঞ্জিনের সাহায্যে মানুষের কণ্ঠস্বর চিহ্নিত করে এবং সেটি পাঠে রূপান্তরিত করে। ক্ষীণ দৃষ্টিশক্তির ব্যবহর্তাদের ক্ষেত্রে পাঠটি কথায় রূপান্তরিত করে পড়ে শোনানো যাবে।
   
  ভারতীয় ভাষায় আন্তর্জালে প্রবেশের নানা উপায় (Internet Access Tools) যেমন ব্রাউজার, সার্চ ইঞ্জিন এবং বৈ-ডাক (e-mail) ব্যবস্থা, এগুলির সাহায্যে ভারতীয় ভাষায় বৈ-ডাক পাঠানো সম্ভব হবে এবং সার্চ ইঞ্জিনের সাহায্যে যে কোনো ভারতীয় ভাষায় প্রশ্ন করে তার ফলাফল অন্যান্য ভারতীয় ভাষাতেও দেখতে পাওয়া যাবে।
   
  অনলাইনে ভারতীয় ভাষা এবং ইংরেজি ভাষায় অনুবাদ পরিসেবা। এর সাহায্যে সাধারণ ব্যক্তি ইংরেজি বা যে কোনো ভারতীয় ভাষা থেকে অন্য যে কোনো ভারতীয় ভাষায় তথ্যবস্তু অনুবাদ করতে পারবেন।
   
একটি অনলাইন সাহায্য ডেস্কসহ TDIL তথ্যকেন্দ্রের মাধ্যমে এই সমস্ত উৎপাদন/পরিসেবা জনগণের কাছে পৌঁছে দেওয়া হবে। গবেষণা, পণ্যায়ন, বিতরণ ও সমৰ্থন ব্যবস্থাকে উৎসাহ দিতে সরকার TDIL-DC (ল্যাঙ্গুয়েজ টেকনোলজি ইউটিলিটি ডিস্ট্রিবিউশন চ্যানেল)-এর জন্য এক নির্দিষ্ট লক্ষ্যমাত্রা স্থির করেছেন এবং সময়ভিত্তিক কিছু কার্যপরিকল্পনা গ্রহণ করেছেন।
   
  উন্নত প্রযুক্তি বাজারে চালু করা
   
  উৎপাদনের উদ্দেশ্যে প্রযুক্তি উন্নয়ন বা পরিশোধন
   
  প্রয়োজনভিত্তিক নতুন প্রযুক্তি তৈরি
   
এই লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করতে নীচের ধাপগুলি গৃহীত হয়েছে
  ক। TDIL তথ্যকেন্দ্রের সাহায্যে ভারতীয় ভাষার প্রযুক্তি/উপায়গুলি ধাপে ধাপে বণ্টন
   
  খ। উন্নত নানা উপায়, প্রযুক্তি, উৎপাদন ও পরিসেবা অর্জন
   
  গ। উপলব্ধ নানা উপায় ও প্রযুক্তির সাহায্যে মানুষের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধি ও ভাষাপ্রযুক্তি ক্ষেত্রে বিভিন্ন সরকারি প্রয়াস জনসমক্ষে নিয়ে আসা
   
  ঘ। নানা উপায়, উপযোগিতা ও উৎপাদন বিনামূল্যে ডাউনলোডের সুযোগ দিয়ে ব্যবহর্তাকে সাহায্য করা
   
  ঙ। ভাষাপ্রযুক্তি ক্ষেত্রে সরকারি-বেসরকারি অংশীদারি উদ্যোগকে উৎসাহদান
   
  চ। নির্দিষ্ট কিছু প্রয়োগ ক্ষেত্রে লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ
   
 
 
 

Valid XHTML 1.0 Transitional